শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ১০ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ঢাবির অনলাইন ক্লাসে সন্তুষ্ট শতকরা ২.৭ শতাংশ শিক্ষার্থী

ঢাবি প্রতিনিধি
১৮ জুলাই ২০২১ ২৩:০৬ | আপডেট : ১৯ জুলাই ২০২১ ১৭:৪৬
প্রতীকী ছবি: সংগৃহীত
প্রতীকী ছবি: সংগৃহীত

মহামারি করোনাভাইরাসে স্থবির হয়ে পড়া শিক্ষা ব্যবস্থায় আলোর মুখ দেখিয়েছিলো অনলাইন ক্লাস। পুরোপুরি শিক্ষা কর্যক্রমের বিকল্প না হলেও শিক্ষা কার্যক্রম চলমান রয়েছে ভার্চুয়াল ক্লাসে। তবে নানা সংকটে প্রশ্নবিদ্ধ ছিলো অনলাইন ক্লাস। করোনাকালীন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চলমান অনলাইন ক্লাসের বিষয়ে সন্তুষ্ট মাত্র ২.৭ ভাগ শিক্ষার্থী।

পাশাপাশি ৪৬.৭ ভাগ শিক্ষার্থী অনলাইন ক্লাস নিয়ে অসন্তুষ্ট বলে মতামত দিয়েছেন। তবে অনলাইন ক্লাস নিয়ে অসন্তুষ্টির পাল্লা ভারি হলেও শতকরা ৫২.৭ জন শিক্ষার্থী অনলাইনে ফাইনাল পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে ইচ্ছুক।

সম্প্রতি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় গবেষণা সংসদের সোশ্যাল সায়েন্স টিম পরিচালিত একটি জরিপে এমন তথ্য উঠে এসেছে। এই জরিপে বিশ্ববিদ্যালয়ের ১০ টি অনুষদ ও ইন্সটিটিউটসমূহের মোট ৩৭৩০ জন শিক্ষার্থী অংশ নিয়েছে। গত জুন মাসের প্রথম তারিখ থেকে টানা ১৫ দিন এ জরিপ পরিচালনা করা হয়।

জরিপের ফলাফলে দেখা যায়, সমাপ্ত হওয়া অনলাইন ক্লাসের বিষয়ে অসন্তুষ্টির পাল্লাই বেশ ভারি। অনলাইন ক্লাসের ব্যাপারে শতকরা ২৩.১ জন শিক্ষার্থী অসন্তুষ্ট ও ২৩.৩ জন শিক্ষার্থী খুব বেশি অসন্তুষ্ট বলে মত প্রকাশ করেছেন। অন্যদিকে ২৩.৯ জন শিক্ষার্থী মোটামুটি সন্তুষ্ট, এবং মাত্র ২.৭ জন শিক্ষার্থী অনলাইন ক্লাসের ব্যাপারে সন্তুষ্ট বলে মতামত দিয়েছেন।

অনলাইন ক্লাসের মাধ্যমে কোর্সের সিলেবাস শেষ হয়েছে কিনা সে বিষয়ে জরিপে একটি প্রশ্ন করা হয়েছিলো। প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে দেখা যায়, ৪৬.৩ ভাগ শিক্ষার্থী হ্যাঁ এবং ৫৩.৭ ভাগ শিক্ষার্থী নাউত্তর দিয়েছেন। জরিপে অংশগ্রহণকারী ৮৫.৮ ভাগ শিক্ষার্থী মোবাইল ও ১১.৭ ভাগ ল্যাপটপের মাধ্যমে ক্লাসে অংশগ্রহণ করেছিলেন। ইন্টারনেট ব্যবহারের ক্ষেত্রে ৬৪.১ ভাগ শিক্ষার্থী মোবাইল ডেটা, ৩৩ ভাগ ওয়াইফাই, ২.২ ভাগ ব্রডব্যান্ড এবং কিছু শিক্ষার্থী মোবাইল ডেটা ও ওয়াইফাই উভয়ই দুটোই ব্যবহার করে অনলাইন ক্লাসে অংশ নেন।

জরিপে অনলাইনে ফাইনাল পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে ইচ্ছুক কিনা জানতে চাওয়া হলে ৫২.৭ ভাগ শিক্ষার্থী ইচ্ছুক, ৪৫ ভাগ শিক্ষার্থী ইচ্ছুক নন এবং বাকিরা এখনো নিশ্চিত নন বলে জানিয়েছেন। তাদের মধ্যে ৫২.৩ শতাংশ শিক্ষার্থী সশরীরে পরীক্ষার হলে বসতে আগ্রহী এবং ১৭.১ শতাংশ শিক্ষার্থী অটো প্রমোশনের পক্ষে মত দিয়েছেন।



মন্তব্য করুন

সর্বশেষ খবর
এই বিভাগের আরও খবর