শনিবার, ২৪ জুলাই ২০২১ | ৯ শ্রাবণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

মহামারীতে আরও এক ঈদ

নিজস্ব প্রতিবেদক
২১ জুলাই ২০২১ ০৬:৫১ | আপডেট : ২২ জুলাই ২০২১ ২১:৩২
ছবি : সংগৃহীত
ছবি : সংগৃহীত

করোনাভাইরাস মহামারীর মধ্যেই আবার এসেছে পবিত্র ঈদুল আজহা। আজ বুধবার বাংলাদেশসহ অনেক দেশে মুসলিমদের অন্যতম প্রধান এই ধর্মীয় উৎসব উদযাপিত হতে হচ্ছে।

লোভ, হিংসা ত্যাগ করে, নিজের ভেতরের পশুত্বকে কোরবানি করার ভেতর দিয়ে মহান আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের চেষ্টা করাই এই ঈদের মূল তাৎপর্য। হজরত ইব্রাহিম (আ.) যেমন করে মহান আল্লাহর নির্দেশে তার সন্তুষ্টি লাভের জন্য পুত্র হজরত ইসমাইল (আ.)-কে কোরবানি করতে উদ্যত হয়েছিলেন, সেই ত্যাগকে স্মরণ করে বিশ্বের মুসলিম সম্প্রদায় আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনে পশু কোরবানি করবে।

ঈদের দিন মহান আল্লাহ তাঁর বান্দাদের দোয়া কবুল করে থাকেন। মুসল্লিরা ঈদের নামাজ আদায় করে নিজের, পরিবারের, দেশ-জাতির কল্যাণের পাশাপাশি, করোনা মহামারি থেকে মুক্তির জন্য প্রার্থনা করবেন।

করোনাভাইরাস সংক্রমণে মৃত্যুর ঊর্ধ্বমুখী অবস্থার মধ্যেই বিধি-নিষেধ তুলে দিয়ে আনন্দ উদযাপনের সুযোগ করে দিয়েছে সরকার। বিপুল পরিমাণ মানুষ ঈদ উদযাপন করতে গ্রামে চলে যাওয়ায় ঈদের পরে সংক্রমণ পরিস্থিতি কী দাঁড়ায়, তা নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করছেন বিশেষজ্ঞরা।

সরকার অবশ্য ঈদের দুদিন পর থেকে আবার কঠোর লকডাউনের ঘোষণা দিয়ে রেখেছে। আর স্বাস্থ্যবিধি মানার মধ্য দিয়ে সেই লড়াইয়ে জেতার আশাবাদ প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

মহামারীর মধ্যে আগের তিনটি ঈদের মতো এই কোরবানির ঈদেও জাতীয় ঈদগাহে মুসল্লিদের পা পড়বে না। ঈদের নামাজ পড়তে হবে মসজিদে। কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়ার কিংবা দিনাজপুরের গোর-ই শহীদ ময়দানেও এবার ঈদের জামাত হচ্ছে না।

গতবারের মতো এবারও বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে থাকবে তালা। আবার বৃষ্টির আভাসও রয়েছে, ফলে কোরবানির পশুর মাংস ব্যবস্থাপনা নিয়ে ঝঞ্ঝাটের শঙ্কা থেকে যাচ্ছে।

করোনাভাইরাসের ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের বিস্তারে আক্রান্ত ও মৃত্যু হু হু করে বাড়তে থাকায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে কোভিড সংক্রান্ত জাতীয় কারিগরি কমিটির পরামর্শে ১ জুলাই থেকে লকডাউন জারি করেছিল সরকার।

দুই সপ্তাহের বিধিনিষেধের পর ঈদ উদযাপনে ১৪ জুলাই মধ্যরাত থেকে ২৩ জুলাই সকাল ৬টা পর্যন্ত সব বিধি-নিষেধ শিথিল করা হয়। তাই ঈদের দিন চলাফেরায় কোনো বিধি-নিষেধ থাকছে না, তার পরদিনও নেই। ফলে বাইরে বের হতে মানা নেই। তবে সরকারি ঘোষণা না বদলালে তার পরদিন থেকে মহামারী নিয়ন্ত্রণের লড়াইয়ে সবাইকে আবার ঢুকে যেতে হবে ঘরে, অন্তত এক সপ্তাহের জন্য।



মন্তব্য করুন