মঙ্গলবার, ৫ জুলাই ২০২২ | ২১ আষাঢ় ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ভূমিকম্পে লন্ডভন্ড আফগানিস্তান, সহায়তা চায় তালেবান

অনলাইন ডেস্ক
২৩ জুন ২০২২ ০৯:১৯ |আপডেট : ২৩ জুন ২০২২ ১৯:২৩
৬ দশমিক ১ মাত্রার শক্তিশালী ভূমিকম্পে লন্ডভন্ড আফগানিস্তান। ছবি : গেটি ইমেজেস
৬ দশমিক ১ মাত্রার শক্তিশালী ভূমিকম্পে লন্ডভন্ড আফগানিস্তান। ছবি : গেটি ইমেজেস

আফগানিস্তানের পূর্বাঞ্চলে ৬ দশমিক ১ মাত্রার শক্তিশালী ভূমিকম্পে মৃতের সংখ্যা হাজার ছাড়িয়েছে। আহত হয়েছেন দেড় হাজার। এখনও শতাধিক মানুষ ধ্বংস্তূপের নিচে আটকা পড়ে আছে বলে জানায় সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা।

২০ বছরের মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ এ ভূমিকম্পে মৃতের সংখ্যা আরও বাড়ার আশঙ্কা করছে কর্তৃপক্ষ। এ অবস্থায় আন্তর্জাতিক সহযোগিতা চেয়েছে তালেবান সরকার।

ভূমিকম্পে সবচেয়ে বেশি ক্ষয়ক্ষতির শিকার দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলীয় পাকতিকা প্রদেশ। হতাহতদের অধিকাংশকেই উদ্ধার করা হয়েছে এ একটি প্রদেশ থেকে। ভূমিকম্পে সেখানকার গায়ান অঞ্চলে ধসে পড়েছে প্রায় ১৮শ ঘরবাড়ি। ধ্বংসস্তূপ থেকে আহতদের উদ্ধার করে হেলিকপ্টারে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে প্রাদেশিক রাজধানী শারান ও রাজধানী কাবুলে।

স্থানীয় কর্তৃপক্ষ বলছে, এখনও ধ্বংসস্তূপের নিচে চাপা পড়ে আছেন অনেকে। তাদের উদ্ধারে নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন উদ্ধারকর্মীরা। তবে দুর্গম এলাকা হওয়ায় উদ্ধার কার্যক্রমে বেগ পেতে হচ্ছে বলে জানিয়েছে আফগান দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা দফতর।

কয়েক ঘণ্টার ব্যবধানে দেশটির পাকতিকা ও খোস্তসহ আশপাশের বিভিন্ন অঞ্চলের পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে বলে জানিয়েছে ইউনিসেফ। হতাহতের পাশাপাশি অবকাঠামোগত ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির খবরও জানায় তারা। মোবাইল টাওয়ার ভেঙে পড়ায় নেটওয়ার্ক বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে পাকতিকা ও খোস্ত প্রদেশের দুর্গম এলাকাগুলো।

এদিকে ভূমিকম্পে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় দ্রুত উদ্ধারকাজ পরিচালনা ও সব ধরনের সহায়তার নির্দেশ দিয়েছে ক্ষমতাসীন তালেবান সরকার। এরইমধ্যে ভূমিকম্পে নিহতদের পরিবারকে প্রায় ১ হাজার ২০০ ডলার ও আহতদের পরিবারকে ৫৫০ ডলার করে অর্থ সহায়তার ঘোষণা দিয়েছে আফগানিস্তানের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা দফতর।

ভয়াবহ এ ভূমিকম্পের ঘটনায় বিস্মিত ও মর্মাহত হয়েছেন ক্যাথলিক খ্রিস্টানদের সবচেয়ে বড় ধর্মযাজক পোপ ফ্রান্সিস। এ ঘটনায় নিহতদের পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনাও জানান তিনি।

এর আগে মঙ্গলবার (২১ জুন) স্থানীয় সময় রাত দেড়টার দিকে আফগানিস্তানের পাকিস্তান সীমান্তে আঘাত হানে শক্তিশালী ভূমিকম্পটি। ৬ দশমিক ১ মাত্রার ওই ভূমিকম্পে মুহূর্তেই আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে গোটা পাকতিকা এবং খোস্ত প্রদেশে।

মার্কিন ভূতাত্তিক সংস্থা ইউএসজিএস জানায়, ভূমিকম্পের উৎপত্তিস্থল পাকিস্তান সীমান্তবর্তী খোস্ত শহর থেকে প্রায় ৪৪ কিলোমিটার দূরে ভূমি থেকে ৫১ কিলোমিটার গভীরে। এতে আফগানিস্তান, পাকিস্তান, ইরান ও ভারতের ৫শ বর্গকিলোমিটারেরও বেশি এলাকাজুড়ে ভূকম্পন অনুভূত হয়।



মন্তব্য করুন