বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪ | ১১ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ভিন্নভাবে ভাষা শহীদদের স্মরণ করলেন ইবির দুই শিক্ষার্থী

ইবি প্রতিনিধি
২২ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ০০:২৫ |আপডেট : ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ১৪:১০
ছবি : সংগৃহীত
ছবি : সংগৃহীত

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে ভাষা শহীদদের স্মরণে ২১ কিলোমিটার পথ দৌড়ালেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) দুই শিক্ষার্থী। বুধবার সকালে তাদের একজন ক্যাম্পাস থেকে কুষ্টিয়া শহর অভিমুখে ও আরেকজন কুষ্টিয়া শহর থেকে ক্যাম্পাসের উদ্দেশ্য যাত্রা শুরু করেন।

ইবির এই দুই শিক্ষার্থী হলেন আল হাদিস এন্ড ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের সাজ্জাতুল্লাহ শেখ ও হিউম্যান রিসোর্স ম্যানেজমেন্ট বিভাগের ২০২২-২৩ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী মানিক রহমান। তাদের এমন ভিন্নভাবে শহীদদের স্মরণ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের কাছে সুনাম কুড়িয়েছে। 

ভাষা শহীদদের স্বরণে ভোর ৪টায় মানিক রহমান ক্যাম্পাস থেকে কুষ্টিয়া শহরের উদ্দেশ্যে দৌড় শুরু করেন। এদিকে সকাল ৭টার দিকে সাজ্জাতুল্লাহ শেখ কুষ্টিয়া শহরের চৌড়হাস থেকে ক্যাম্পাসের উদ্দেশ্য দৌঁড় শুরু করেন। ২ ঘন্টা ১০ মিনিটে মানিক কুষ্টিয়া শহরের চৌড়হাসে পৌঁছান এবং ২ ঘন্টা ১৫ মিনিটে সাজ্জাতুল্লাহ বিশ্ববিদ্যালয়ের মৃত্যুঞ্জয়ী মুজিব মুর‍্যালের পাদদেশে পৌঁছান। ২১ কিলোমিটারের দীর্ঘ দৌড় শেষে সাজ্জাতুল্লাহকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকে ফুলেল শুভেচ্ছা দিয়ে বরণ করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

এ বিষয়ে মানিক রহমান বলেন, যাদের আত্মত্যাগের বিনিময়ে আমরা বাংলা ভাষা পেয়েছি তাদেরকে আমরা শুধুমাত্র শহীদ মিনারে ফুল দেওয়ার মাধ্যমে স্মরণ করি। আর সেই ফুল দেওয়ার পর ছবি তুলে ফেসবুকে পোস্ট করি। আমার মনে হয়, এখানে মন থেকে তাদেরকে স্মরণ না করে সবাই ছবি তোলার জন্যই এমনটা করে থাকে। তাই আমারও নিজের সামান্য আত্মত্যাগের বিনিময়ে ভাষা শহীদদের স্মরণের একটি ক্ষুদ্র প্রচেষ্টা ছিল এটি। এই দিনটি আমার আজীবন মনে থাকবে।

সাজ্জাতুল্লাহ শেখ বলেন, ভাষা শহীদদের বুকের তাজা রক্তের বিনিময়ে আমরা আমাদের মাতৃভাষা বাংলা পেয়েছি। আমি সেসকল শহীদদের সম্মানার্থে তাদেরকে উৎসর্গ করেই আজকে ২১ কিলোমিটার দৌঁড়িয়েছি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. শাহাদৎ হোসেন আজাদ বলেন, শিক্ষার্থীদের অর্জন বিশ্ববিদ্যালয়ের সুনাম বৃদ্ধি করে। যারা ভাষা শহীদদের স্বরণে ম্যারাথন দৌড়িয়ে ২১ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়েছ তাদের জন্য শুভকামনা। ভবিষ্যতে তাদের উত্তরোত্তর সফলতা কামনা করছি।



মন্তব্য করুন