রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪ | ২ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কক্সবাজারে নির্বাচনি সহিংসতায় ছুরিকাঘাতে যুবক খুন

নিজস্ব প্রতিবেদক
২১ মে ২০২৪ ২০:১৮ |আপডেট : ২৬ মে ২০২৪ ২১:৩৯
ছবি : সংগৃহীত
ছবি : সংগৃহীত

উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের দ্বিতীয় ধাপে কক্সবাজারের ঈদগাঁও উপজেলায় নির্বাচনি সহিংসতায় প্রতিপক্ষের ছুরিকাঘাতে টেলিফোন প্রতীকের এক সমর্থক খুন হয়েছেন।

মঙ্গলবার ভোটগ্রহণ শেষে বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে উপজেলার পশ্চিম পোকখালী ৪ নম্বর ওয়ার্ডে এ ঘটনা ঘটে বলে জানিয়েছেন ঈদগাঁও থানার ওসি শুভ রঞ্জন চাকমা।

নিহত সফুর আলম (৩৮) ওই ওয়ার্ডের মামমোরা পাড়া এলাকার নুর উদ্দিনের ছেলে। তিনি টেলিফোন প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী আবু তালেবের সমর্থক ছিলেন।

টেলিফোন প্রতীকের সমর্থক দেলোয়ার জানান, তিনি একটি বাড়িতে খাবার খেতে গেলে সেখানে মোটরসাইকেল প্রতীকের সমর্থকেরা তাকে আটকে রাখে। খবর পেয়ে তাকে উদ্ধারে ছুটে যান সফুর আলম। সেখানে তাকে ছুরিকাঘাত করা হয়।

তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক সাজ্জাদুর রহমান মৃত ঘোষণা করেন বলে জানান তিনি।

ঈদগাঁও থানার ওসি শুভ রঞ্জন চাকমা বলেন, মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানোর প্রক্রিয়া চলছে। এ ঘটনায় আইনি ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।

তিনি জানান, দ্বিতীয় দফায় কক্সবাজারের চকরিয়া, পেকুয়া ও ঈদগাঁও উপজেলার ভোট ইভিএমে শেষ হয়েছে। এখন চলছে ফল ঘোষণার প্রক্রিয়া।

চকরিয়া ও পেকুয়ায় ভোট শান্তিপূর্ণ হলেও ঈদগাঁও উপজেলায় দিনব্যাপী বিচ্ছিন্ন ঘটনা ঘটেছে। এর মধ্যে দুপুরে একটি কেন্দ্রে প্রবেশের চেষ্টার সময় মোটরসাইকেল প্রতীকের প্রার্থী সামশুল আলমকে মারধরের ঘটনা ঘটে।

টেলিফোন প্রতীকের সমর্থকরা এ হামলায় জড়িত বলে দাবি, মোটরসাইকেল প্রতীকের প্রধান নির্বাচনি এজেন্টে মৌলভী ইয়াছিন হাবিবের।

একই সময় কেন্দ্রের পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিতে গিয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের বিরুদ্ধে টেলিফোন প্রতীকের প্রার্থী আবু তালেবকে মারধরের অভিযোগ ওঠে।

এদিকে দুপুরে আড়াইটার দিকে ভোটকেন্দ্রে প্রভাব বিস্তারের অভিযোগ তুলে আনারস প্রতীকের প্রার্থী সেলিম আকবারের কর্মী-সমর্থকরা চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কে অবরোধ করেন। এ সময় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা লাঠিচার্জ করে তাদের সরিয়ে দেন।



মন্তব্য করুন