সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪ | ৩০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সর্বকনিষ্ঠ হজযাত্রীর মৃত্যুতে কাঁদছে সৌদি

অনলাইন ডেস্ক
১৪ জুন ২০২৪ ০৯:০৭ |আপডেট : ২৩ জুন ২০২৪ ১৫:২৫
ইয়াহইয়া মোহাম্মদ রামাদান
ইয়াহইয়া মোহাম্মদ রামাদান

সৌদি আরবের বিরুপ আবহাওয়া, শারীরিক পরিশ্রম আর প্রচণ্ড ভীড়ে বহু হাজযাত্রীই মৃত্যুবরণ করেন মক্কা আর মিনা। যদিও এই কষ্ট লাঘবে চেষ্টার কমতি নেই সৌদি প্রশাসনের। চলতি বছর এখন পর্যন্ত সেখানে মারা গেছেন অন্তত ১৫ জন বাংলাদেশি।

আল্লাহর ঘরে গিয়ে ইবাদতকালে মৃত্যু ধর্মভীরু মুসলমানদের কাছে যেন পরম সৌভাগ্যের। কারণ সেখানে মৃত্যু হলে পবিত্র ভূমিতেই দাফন করা হয়। এমন ভাগ্য কজনের কপালে জোটে। কিন্তু তাই বলে নিষ্পাপ শিশু! বিষয়টি চরম ব্যথিত করেছে খোদ মক্কার হজ কর্মকর্তা আর অন্যান্য হজযাত্রীকে। এমনই একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে সংযুক্ত আরব আমিরাতের সংবাদমাধ্যম গালফ নিউজ।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ঘুরে ফিরছে এই ছবিটি। যাতে দেখা যাচ্ছে, সৃষ্টিকর্তার প্রিয় ঘরের সামনে বাবার কোলে কতটাই না খুশি, ইহরাম বাঁধা নিষ্পাপ এই শিশুটি। ইয়াহইয়া মোহাম্মদ রামাদান নামের এই শিশুটি বাবা মায়ের সাথে পবিত্র আল্লাহ ঘর তাওয়াফে আসে সুদূর মিশর থেকে। বলা হচ্ছে, এ বছর যত হজযাত্রী মারা গেছেন তাদের মধ্যে এই শিশুই সর্বকনিষ্ঠ।

শুরুতে বলা হচ্ছিল প্রচণ্ড গরম সহ্য করতে না পারে মৃত্যু হয় ইয়াহইয়া রামাদানের। তবে কয়েকটি সংবাদ বলছে, ছাদ থেকে পড়ে গিয়ে তাৎক্ষণিক মারা যায় সে। হারাম শরীফের মাইকেই ঘোষণা করা হয় রামাদানের মৃত্যুর কথা। মরহুমের সম্মানে জানাযাও হয় পবিত্রতম এই মসজিদে।

জর্ডান ভিত্তিক রোয়া নিউজ জানিয়েছে, পবিত্র মাটিতে ইয়াহহিয়ার এমন মৃত্যু তার পরিবার এবং সোশ্যাল মিডিয়ায় তার অনুসারীদের ভারাক্রান্ত করেছে। পরে তাকে মক্কাতেই দাফন করা হয়।

সর্বকনিষ্ঠের শোক সংবাদের বিপরীতে এবারের হজে বয়োজ্যেষ্ঠ হজযাত্রী হিসেবে মক্কায় গেছেন আলজেরিয়ার বাসিন্দা সারাহুদা স্তিতি। বলা হচ্ছে, তার বয়স ১৩০ বছর। গেল মঙ্গলবার বিমানবন্দরে তাকে স্বাগত জানায় সৌদি কর্তৃপক্ষ। এই খবরও ফলাও করে প্রচার করছে গালফ নিউজসহ বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম।



মন্তব্য করুন