শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১ | ১ কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বিশ্বসেরা গবেষকদের তালিকায় যবিপ্রবি শিক্ষার্থী সায়েম

যবিপ্রবি প্রতিনিধি
১৪ অক্টোবর ২০২১ ২০:৩১ |আপডেট : ১৪ অক্টোবর ২০২১ ২০:৪৯
যবিপ্রবি শিক্ষার্থী আবু হায়াত মাহমুদ সায়েম
যবিপ্রবি শিক্ষার্থী আবু হায়াত মাহমুদ সায়েম

এডি সায়েন্টিফিক ইনডেক্স-বিজ্ঞানী তালিকা ২০২১ এ বিশ্বসেরা গবেষকদের তালিকায় শিক্ষকদের পাশাপাশি গবেষক হিসেবে স্থান পেয়েছেন যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (যবিপ্রবি) শিক্ষার্থী আবু হায়াত মাহমুদ সায়েম। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের ইলেট্রিক্যাল এ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং (ইইই) বিভাগের স্নাতক চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী।

মূলত পাওয়ার প্লান্ট, পাওয়ার ইলেকট্রনিক্স, নবায়নযোগ্য শক্তি ও মেশিন লার্নিংয়ের উপর গবেষণাধর্মী কাজ করেন তিনি। এরই ফলশ্রুতিতে নিজ বিভাগের শিক্ষক ড. ইমরান খানের তত্বাবধানে কাজ করে চলতি বছরের ১৬ই ফেব্রুয়ারী সায়েন্সডাইরেক্ট.কমে "Problematizing solar energy in Bangladesh: Benefits, burdens and electricity access thorough solar home system in remote islands" শীর্ষক শিরোনামে গবেষণা প্রবন্ধ প্রকাশিত হয়।

যেখানে নোয়াখালী জেলার হাতিয়া দ্বীপে বাড়িতে সোলার ব্যবহার করে জনসাধারণ কি ধরনের সুবিধা পাচ্ছেন ও ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে সেটি তুলে ধরা হয়েছে। বিশ্লেষণে হাতিয়া দ্বীপের ৮৭ শতাংশ মানুষ শুধু রাতে বাতি জ্বালানোর জন্য এবং ১৩ শতাংশ মানুষ রাতে বাতি জ্বালানোর জন্য ও মোবাইল চার্জের জন্য সোলার সিস্টেম ব্যবহার করার বিষয়টি উল্লেখ করা হয়েছে। যদিও এ ব্যবস্থা ব্যবহার করার ফলে তাদেরকে ঘন ঘন বাতি ও কন্ট্রোলার পরিবর্তন, মৌসুমী বায়ুতে বিশেষ করে বৃষ্টির দিনে চার্জিংয়ের সমস্যাসহ নানা অসুবিধার মুখে পড়তে হয়।


পুরো ব্যবস্থার জন্য আনুষঙ্গিক যন্ত্রপাতি ও যন্ত্রাংশের কারিগরি মান সুনিশ্চিত করা না গেলে ব্যবস্থাটি মালিকদের কাছে বোঝায় পরিনত হয়ে যাবে। এ সম্পর্কিত উপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহন করলে এই বোঝাই আবার সুবিধাতে রুপান্তরিত হবে। সোলার হোম সিস্টেম (এসএইচএস) ব্যবস্থাটি বাংলাদেশের মতো সল্পোন্নত আর্থসামাজিক বৈশিষ্ট্যের অন্যান্য দেশের যে কোন দুরবর্তী দ্বীপে প্রয়োগ করার জন্য উপযুক্ত।

এডির তালিকায় যবিপ্রবির গবেষকদের মধ্যে প্রথম ও দেশের মধ্যে ১৩তম স্থানে রয়েছেন ফিশারিজ এন্ড মেরিন বায়োসায়েন্স বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মোঃ হাবিবুর রহমান, দ্বিতীয় স্থানে রয়েছেন অণুজীববিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. ইকবাল কবীর জাহিদ এবং তৃতীয় স্থানে রয়েছেন কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মোঃ জাবেদ হোসেন খান।


এতে ২০৬টি টি দেশের গবেষকদেরকে নিয়ে ১২ টি ক্যাটাগরিতে তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে। তালিকাতে বিশ্বের ৭ লাখ ৮ হাজার ৫৬১ জন গবেষকের মধ্যে বাংলাদেশের এক হাজার ৭৮৮ জন গবেষক স্থান পেয়েছেন। এডি সায়েন্টিফিক ইনডেক্স গবেষকদের গুগল স্কলারের রিসার্চ প্রোফাইলের বিগত ৫ বছরের গবেষনার এইচ ইনডেক্স, আইটেন ইনডেক্স এবং সাইটেশন স্কোরের ভিত্তিতে র্যাংকিং প্রকাশ করে।

শিক্ষার্থী আবু হায়াত মাহমুদ সায়েম ১৯৯৬ সালের ১৭ নভেম্বর নোয়াখালী জেলার হাতিয়া উপজেলায় জন্মগ্রহণ করেন। মাকসুদিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে ২০০৭ সালে প্রাথমিক, ২০১৩ সালে সুখচর আজহার উলুম ফাজিল মাদ্রাসা থেকে বিজ্ঞান বিভাগে দাখিল ও নোয়াখালী সরকারি কলেজ থেকে ২০১৬ সালে বিজ্ঞান বিভাগ থেকে কৃতিত্বের সাথে উত্তীর্ণ হন। পরবর্তীতে তিনি মেধার স্বাক্ষর রেখে ২০১৬ সালে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (যবিপ্রবি) তড়িৎ ও বৈদ্যুতিক প্রকৌশল (ইইই) বিভাগে ভর্তি হন। ছোটবেলা থেকেই পড়াশোনার পাশাপাশি তিনি নানা সামাজিক ও সহশিক্ষামূলক কার্যক্রমে যুক্ত ছিলেন।



মন্তব্য করুন

সর্বশেষ খবর
এই বিভাগের আর খবর